শুষ্ক মৌসুমের আগেই গাজনার বিল পানি শূন্য বশির আহমেদ, ঈশ্বরদী (পাবনা) ব্যুরো

0
512

শুষ্ক মৌসুমের আগেই গাজনার বিল পানি শূন্য

 

বশির আহমেদ, ঈশ্বরদী (পাবনা) ব্যুরো

শুষ্ক মৌসুম আসার আগেই পাবনার সুজানগরের প্রমত্ত গাজনার বিল প্রায় পানি শূন্য হয়ে পড়েছে। অথচ বেশি দিন আগের কথা নয়, বিলটিতে সারা বছর পানি থৈথৈ করতো। আর বিলের পানিতে থাকত রুই, কাতলা, মৃগেল, চিতল, কৈ, বোয়াল, পাবদা এবং নয়নাসহ নানা প্রজাতির মাছ। সুজানগর পৌরসভাসহ উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের হাজার হাজার মৎস্যজীবী তখন ওই বিল থেকে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করতো। সেই সাথে গাজনার বিলের মাছ সে সময় সুজানগরবাসীর চাহিদা মিটিয়ে পাবনাসহ আশপাশের জেলায় সরবরাহ করা হতো। আর এ জনপদের কৃষক তখন সেচনালার মাধ্যমে ওই বিল থেকে পানি নিয়ে বিল সংলগ্ন জমিতে ধানসহ বিভিন্ন ফসল উৎপাদন করতো। পাশাপাশি ওই সময় এলাকাবাসীর বিনোদনের জন্য গাজনার বিলে আয়োজন করা হতো নৌকা বাইচ। এ ছাড়া  সে সময় গাজনার বিলকে বাণিজ্যিক রুট হিসাবেও ব্যবহার করা হতো। এলাকার ব্যবসায়ীরা সারা বছর ওই বিল হয়ে বড় বড় নৌকাযোগে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় ধান ও পাটসহ বিভিন্ন পণ্যের ব্যবসা করতেন। অথচ সময়ের পরিক্রমায় প্রমত্ত গাজনার বিল এখন একটি শীর্ণ খালে পরিণত হয়েছে। ফলে বর্ষা শেষে শুষ্ক মৌসুম আসার আগেই বিল প্রায় পানি শূন্য হয়ে পড়েছে। বিল পাড়ের চরদুলাই গ্রামের বাচ্চু মোল্লা জানান, ৯০’র দশকের দিকেও গাজনার বিলের যে গর্জন ছিল যা দেখে রীতিমত ভয় পেতে হতো। এলাকার লোকজন তখন দৈনন্দিন প্রয়োজনে বড় বড় নৌকাযোগে গাজনার বিল পার দিতে ভয় পেত। কারণ সে সময় প্রচ- ¯্রােত আর বড় বড় ঢেউ মুর্হুমূহু আচড়ে পড়তো নৌকার উপর। যেকোন মুহূর্তে ঘটতে পারতো নৌকাডুবির ঘটনা। কিন্তু এখন আর গাজনার বিলের সেই প্রমত্ততা নেই। গাজনার বিল এখন নামেই ঐতিহাসিক বিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here